আমি এখন পর্যন্ত একটাও সুন্দরী নারীবাদী পেলাম না !!

বিশ্বাস করুন, আমি এখন পর্যন্ত কোন একটাও সুন্দরী নারীবাদী পেলাম না। যা দেখলাম সব বেঢপ, ধুমসি, কদাকার, ঢেমসি বা বিকৃত চেহারার অধিকারী।
এদের অনেককে দেখলে আবার বোঝার উপায় নেই, এটা নারী, পুরুষ নাকি তৃতীয় লিঙ্গ !!

কালকে দেখলাম প্রীতি নামক এক পুচকে নারীবাদী শাড়ী পড়ে ফটু আপলোড দিয়ে নিজেকে Sexy বলে বিজ্ঞাপন করছে। তার কথিত সেক্সি ছবি দেখে, হতাশায় আমার মুখ থেকে এক গাল হাওয়া বেড়িয়ে গেলো।

আহারে বেচারি! ঐ চেহারা নিয়ে কত কষ্ট পেয়ে যেনো শেষ পর্যন্ত নারীবাদী দলে যোগ দিয়েছে।

মাঝে মাঝে দেখি উইম্যান চ্যাপ্টারের সুপ্রীতি ধর হাতা কাটা ব্লাউজ পরে আর্মপিট বের করে আবেদন তৈরীর বৃথা চেষ্টা চালায়। সব নারীবাদীর কার্যক্রম প্রায় সেইম, আবেদন সৃষ্টির বৃথা চেষ্টা, কিন্তু দিন শেষে তুতু-ভুতুরাও তাকায় না।

বছরখানেক আগে মারজিয়া প্রভা নামক এক নারীবাদীকে নিয়ে ফেসবুকে একটা স্ট্যাটাস লিখেছিলাম। স্ট্যাটাসের শিরোনাম ছিলো – “ফেসবুকে আমার দেখা শ্রেষ্ঠ সুন্দরী”। স্ট্যাটাসটা দেওয়ার পর ‍বুঝলাম ভুল করেছি। বেচারি মেয়েটা আমার রিভার্স স্ট্যাটাস ধরতেই পারেনি। উল্টো আমার স্ট্যাটাস শেয়ার করে বান্ধবীদের কাছে নিজেকে সুন্দরী বলে দাবি করতে থাকলো।

গত ৪-৫ বছর যাবত, ফেসবুকে নারীবাদীদের দেখে একটা বিষয় মোটামুটি নিশ্চিত হয়েছি,

সাধারণত কুশ্রী-কদাকার ও বিকৃত চেহারার মেয়েগুলোই নারীবাদী হয়। এটা তাদের দোষ নয়। সম্ভবত এটা তাদের একটা মানসিক রোগ। কদাকার চেহারার কারণে পুরুষ থেকে বারংবার রিফিউজ হয়ে অতি কষ্টে এদের মস্তিষ্ক বিকৃত ঘটে এবং সেই বিকৃত মস্তিষ্ক দ্বারা তারা সকল পুরুষকে শত্রু মনে করে পুরুষ বিরোধী কার্যক্রম চালায়। কদাকার চেহারার মস্তিষ্ক বিকৃত সে সব নারীর প্রতিশোধ পরায়নতার নাম-ই হচ্ছে আসলে নারীবাদ।

noyon chatterge

Comments Us On Facebook: