Wednesday , October 24 2018
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / বেতাগীতে সংখ্যালঘু নির্যাতনের প্রধান আসামী গ্রেফতার

বেতাগীতে সংখ্যালঘু নির্যাতনের প্রধান আসামী গ্রেফতার

শারিরিক অবস্থার উন্নতি হয়নি নির্যাতিত বৃদ্ধ বৃদ্ধার

মোঃমেহেদী হাসান:

বরগুনা বেতাগীর আলোচিত ঘটনার প্রধান আসামী সিদ্দিককে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে বেতাগী থানা পুলিশ।

ঘটনাসম্পৃক্ত মামলার তদন্ত অফিসার জনাব মোঃ আমিনুল ইসলাম জানান সিদ্দিক এমন সামাজিক বিব্রতকর ঘটনা ঘটিয়েও সাধারণ ভাবে চলে আসছিল তাকে আমাদের বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। অপরদিকে নির্যাতিত বৃদ্ধ বৃদ্ধার এখনো শারিরিক অবস্থার তেমন কোন উন্নত হয় নি। হাসপাতালের দায়িত্বরত ডাক্তার জনাব মোঃ হাসান সাহেব জানান তাদের শারিরিক অবস্থা মোটেও ভালো নেই এমনে ও তারা বৃদ্ধ তার উপর এমন শারিরিক আঘাত যার ফলেপুরোপুরি সুস্থ হতে কিছুটা সময় লাগবে।

গত ১৬ র্মাচ ২০১৮ রোজ শুক্রবার দুপুর আনুমানিক ০২ ঘটিকার সময় বেতাগীর হোসনাবাদ ইউনিয়নে এমন বিব্রতকর ঘটনা ঘটে। স্থানীয় লোকদের কাছে জানতে চাইলে নাম না প্রকাশের সর্তে কয়েকজন বলেন, বেশ কিছুদিন পূর্ব হতেই স্থানীয় দক্ষিণ হোসনাবাদ নিবাসি মোঃ সিদ্দিক (৩০) পিতা মোঃ নাজেম মুন্সী তাদের সাথে নির্যাতিত একই গ্রামের বাসিন্দা মহেন্দ্র দাস (৭৫) এর সাথে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ ছিল।

তবে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তির্বগ বেশ কিছুবার সালিশী ব্যাবস্থার মাধ্যমে মিটমাট ও করেছে তবে তাতে অভিযুক্ত সিদ্দিকের কোন জমি ছিল না মিথ্যা হয়রানীই ছিল প্রধান উদ্দেশ্য । আর তারই জের ধরে গত শুক্রবার দুপুর ০২ ঘটিকার সময় সিদ্দিক মহেন্দ্র বেপারী ও তার স্ত্রীর উপর উদ্দেশ্য মুলক কথা কাটাকাটির মাধ্যমে অমানুষিক, অশ্লীল নির্যাতন চালায় । নির্যাতিত মহেন্দ্র চন্দ্র দাস এর বড় ছেলে জগদীশ চন্দ্রের কাছে এমন ঘটনার বিবৃতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ছেলে জীবিত থাকতে তার বাবা মাকে যদি বাহিরের লোকের কাছে মার খেতে হয় ও মায়ের সাথে অশ্লিল আচারন করা হয় তবে এর চেয়ে কষ্ট ও লজ্জ্বা আর থাকে না তবে কি হিন্দু হয়ে জন্ম নেওয়াটাই বড় অপরাধ ?
এ ব্যাপারে নির্যাতিত মহেন্দ্র ও তার স্ত্রী আকুলী রাণীর কাছে জানতে চাইলে তারা জানান,আমাদের উপর অমানষিক নির্যাতন করা হয় নির্যাতিত বৃদ্ধ বৃদ্ধা বলেন আমরা এই নরপিশাচ সিদ্দিক এর এমন অপকর্মের সঠিক বিচার চাই, দেশে কি আইন কানুন কিছু নাই ? সুস্থ হয়েই আমরা আইনের আশ্রয় নিব ।আমরা হিন্দু কল্যান মন্ত্রনালয় ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপসহ দৃষ্টি কামনা করছি।

নির্যাতিত বৃদ্ধ বৃদ্ধার পুত্রবধু বিথী রাণী আবার জানান, বেশ কিছুদিন আগে আমাদের এলাকার পাশেই এক হিন্দু মহিলা শিক্ষিকা কে ধর্ষণ করা হয় , এই হলো আমাদের সমাজব্যাবস্থা । আরো বলেন, আমরা ভয়ের কারনে এখন বাড়ি থেকে বের হতে পারি না।তাছাড়া আমরা ভয়ের কারনে এতদিন কারো কাছে বলি নাই এমনকি থানায় প্রর্যন্ত ও যাই নাই। আমরা সরকারের কাছে সহায়তা চাই ও আইনের কাছে নিরাপত্তা চাই।

উক্ত ঘটনার পর নির্যাতিত বৃদ্ধ বৃদ্ধাকে দেখতে যান হোসনাবাদ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জনাব মাকসুদুর রহমান ফোরকান ও জেলা পরিষদেরপ্যানেল চেয়ারম্যান জনাব মোঃ নাহিদ হোসেন লিটু তারা ভিন্ন ভিন্ন ভাবে আর্থিক সহায়তা করেন।

About banglamail

Check Also

ছাত্রলীগ সভাপতি মাদকাসক্ত এবং বিবাহিত ! নানা তালিকাভুক্ত রাজাকার, চাচা জেএমবি কমান্ডার !

অনেক জল্পনা-কল্পনা, আলোচনা-সমালোচনার পর সম্মেলনের আড়াই মাস অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে গত ৩১ জুলাই ঘোষণা করা …