Tuesday , October 23 2018
Home / ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে / বাংলাদেশ স্রেফ একটা জানোয়ারের দেশ!

বাংলাদেশ স্রেফ একটা জানোয়ারের দেশ!

এটা স্রেফ জানোয়ারের দেশ! এই জংলির বাচ্চা একটা দেশে মেয়ে মানুষ দূরে থাক, মানুষের বাচ্চা থাকে? মানুষের বাচ্চার দেশ এইটা? না জানোয়ারের বাচ্চা থাকে এইখানে?? দেশপ্রেম চো*ই”তে আইসেন না ভাইজান! আগে শুইনা নেন কেন এই ভদ্র মেয়ের মুখ থাইকা এইসব নাউজুবিল্লা কথা বের হইতাছে! কখনো তো এই ভদ্র মেয়ে এমন কথা লেখেনাই! ভালো ভালো কথাই তো লেখছে!

আজকে এই স্বাধীন বংগে গ্যাং রেপ হওয়া থেকে বাঁচছে আমার বোন! আমার আপন ছোট বোন! যে আমার বয়স ৬ বছর অবস্থায় আসছিল দুনিয়ায়! আমার বাবা মা অনেক যত্ন নিয়ে এত বড় করছে যারে! ! আমার নিজ এলাকায়! ফিজিক্যালি হ্যারেসমেন্টের পর তাকে ভার্বালি হ্যারেস করছে কারা জানেন?? এলাকায় জামে মসজিদের দাড়ি টুপিওয়ালা মোল্লাগন!

এই কথা শুইনা আপনার ঈমান দন্ডে আগুন লাইগা গেলে এক কাজ করেন! আমার সামনে আসেন একটু! আপনাদের মত জানওয়ার মেরে জেলে যাই। ছ্যাপ ও আসেনা এইসব মুখে মারার জন্য! লিটার লিটার ছ্যাপ লাগব আপনার ঈমান দন্ডের আগুন নিভানির জন্য!!!!

বাসের জন্য আমার ছোটবোনটা দাঁড়ায় ছিল। দুপুরবেলা। রাস্তা ফাকা! শুধু গাড়ী যাচ্ছে!

পিছন থেকে এক লোক, রাস্তা পার হবার ভান করে পাশে দাঁড়াল! তারপর হুট করে ডাইরেক্ট তার পিছনদিকে হাত দিল! আমার বোন চমকে উঠল ভয়ানক!

হারামি একেবারে কিছুই হয়নাই ভান করে দাঁড়ায় রইল। ঝামেলা হবে ভেবে আমার বোন কষ্ট পেলেও রাস্তা পার হয়ে গেল। কিছু বলল না!

হারামির বাচ্চা খুব মজা পেয়ে গেল এবার! বাহ! কিছুই বলে নাই! সেও সাথে সাথে রাস্তা পার হল এবং কিছু বুঝার আগেই ঠিক সেই জায়গায় আবার হাত দিল! বোনের মাথায় আগুন ধরে গেল! সে পিছন থেকেই হাত খপ করে ধরে ফেলল- কি করতেছেন আপনি??

সাথে সাথে মানুষজন জড়ো হয়ে গেল! কি হইছে কি হইছে!দশ বিশজন এসে গেল!

আর অবাক কান্ড! লোকটা ভুজুং ভাজুং বুঝানো শুরু করল, আর সবগুলি লোক ওই লোকটার পক্ষ নিল! যেন এটা কিছুই না! বলল- আরে ছেড়ে দেন, বাদ দেন! মাফ করে দেন! এ ভাই,যান গা তো!

আমার বোন ওই হারামির হাত টাইনা ধরে বলল- আপনি থানায় যাবেন আমার সাথে! আপনি একবার করসেন মাফ করছি, আবার করলেন কেন???? লোক ভয় পেয়ে গেল এবার! বলতে লাগল ছেড়ে দেন আপা ভুল হয়ে গেছে!

অবাক কান্ড! বিশ পঁচিশ জন মানুষ একেবারে ক্ষেপে উঠল! ধমকে বলল- পুলিশে দিবেন কেন! গায়ে হাত ই তো দিছে! আর তো কিছু করেনাই! পুলিশে কেন দিবেন? ছাড়েন! নস্টামি করতেছেন কেন?

ওয়াও! আমার বইন নষ্টামি করতেছিল?? বাহ বাহ! তালিয়া বাজাও ভন্ডু!!!

আমার বোন লোকের হাত ধরে রাখল! বলল আমি ছাড়ব না! আপনি থানায় যাবেন ই।

তারপর কি হল জানেন???

সোনার বাংলাদেশে খুব সুন্দর একটা ঘটনা হল!!!!

বিশ পঁচিশ জন মানুষের কয়েকজন আমার বোনকে ঘিরে রাখল, যাতে সেই ওই লোককে ধরতে না পারে!

বাকি কয়েকজন একটা রিকশা এনে সেই শুওরের বাচ্চাকে উঠায়া দিল! বলল- ভাই, তাড়াতাড়ি যান! থানা কিন্তু সামনেই। প্রব্লেম আছে!

আমার বোনের মাথায় রক্ত চড়ে গেল। সে যেই রিকশায় উঠল,আমার বোন রিক্সা থামায় দিয়ে হ্যাচকা টান দিয়ে নামাইলো। যখন ধরতে নিল তখন রাস্তায় মোটরসাইকেল নিয়ে কয়েকজন অবরোধ করল! সেফলি যাতে হারামিটা পালায় যাইতে পারে!

হারামিটা দৌড়ায় গেলে আমার বোন ও পিছনে দৌড়ায় গেল,তখন মটর সাইকেল গুলো পথ রোধ করল।

সবাই সেই হারামিকে পালিয়ে যেতে সাহায্য করল! কালেক্টিভলি! সবাই মিলে! এত গুলা মানুষ মিলে!!!!!!

অপমানে রাগে, কষ্টে আমার বোনটা যখন অবশ হয়ে দাঁড়ায় রইল তখন আমাদের মোল্লা মুমিন মুছলমান কিছু ভাইয়েরা নানা সুন্দর সুন্দর মন্তব্য ছুড়ে মারল!

-নস্টামির জায়গা পান না আর? গলা ফাটাইয়া চিল্লাইতেছেন! ভদ্র লোকের সমাজ এটা!

– গায়ে হাত দিছে দেইখা ইজ্জত গেছে গা একেবারে আপনার,, আর এখন যে রাস্তায় চিল্লাইতেছেন, তখন ইজ্জত যায় না?

– বাসায় যান! তুলকালাম কইরা ফেলতেছে! বেয়াদপ মেয়ে! লজ্জা নাই!

-আপনি কি পাগল হইয়া গেছেন? আশ্চর্য, এইরকম করতেছেন কেন? লাইগ্যা থাকতে চায়!

বাসায় এসে দেখছি আমার বোনটা আলুথালু অবস্থায় বসে কাঁদতেছে! ঘটনা ঘটছে সেই দুপুরে, সে এখনো ট্রমাটাইজড! মানুষের আচরনে!! বার বার বলতেছে এই কুত্তা হায়েনার দেশে আমি যতদিন থাকব, আমি ছুরি নিয়ে ঘুরব! যেদিন পালাতে পারব, আমি সেদিন শান্তি পাব! এরপর ডাইরেক্ট গলায় ছুরি ধরব!

বোনটা রাতে ঘুমাতে পারেনি! তার চোখে খালি ভাসছে মোটর সাইকেল দিয়ে সে চারদিক অবরুদ্ধ, মানুষের কুৎসিত গালি, হাসি, বিশ্রি কথা, মোল্লাদের চোখ রাঙানি আর অবজ্ঞা। মেয়ে হবার অপরাধে, চুপ না থাকার অপরাধে বেশরম মাইয়া বলে গাল দেয়া সমাজ, হারামি ধর্ষকামীদের সাপোর্ট দেয়া এই পুরা সমাজ! একজন দুইজন না, পুরা সমাজ!!!

এটা অমানুষের দেশ!!! এখানে মানুষ থাকতে পারেনা! কিছুতেই না! কিভাবে ভাই? কিভাবে???? আপনি বলতে পারেন?? আমার ওই হ্যারেসকারী জানওয়ারের উপর আর ক্ষোভ নাই! কেন থাকবে?? কেন থাকবে???? হ্যারেসকারীদের বাঁচাতে সমাজের ১০০ জন এগিয়ে আসলে কেন হ্যারেস করবেনা কেউ?? সবাই গনহারে শুরু করে দেন! এখনি দেন! সামনে হাতাবে, পিছনে হাতাবে! প্রতিবাদ করলে সবাই তাকে সাপোর্ট দিবে! রিকশা নিয়ে পালায়া পার করায় দিবে! মেয়েটাকে বেহায়া বেশরম বলবে! কি মজা! কি মজা! হীরক রাজার দেশেও তো এত মজা হইত না! এত মজা! এত মজা! সমাজের সবাই ধর্ষকামীদের পক্ষে! এক সাথে! এক বাক্যে! এ কিসের দেশ??? এ কিসের দেশ ভাই?? এটারে দেশ বলে???এটা দেশ???

আজকে মেয়েটার প্রতিবাদে এই হারামি ভয় পেয়ে আরেকটা মেয়ের গায়ে হাত দিতে ভয় পেত!! আর এখন??? সবাই মিলে যে তাকে উদ্ধার করে সসম্মানে বাচায়ে দিল, কেন সে আরেকবার আরেকটা মেয়ের গায়ে হাত দিবেনা????? কেন দিবে না??? অবশ্যই দিবে! কারন এই জানয়ার সমাজ এরকমই! এটা সভ্য মানুষের সমাজ কিভাবে হয়?? আমাকে বুঝান????

কিছু কিছু চেনা মানুষ আমি নারীবাদী কথা লেখি সেগুলা নিয়ে বেশ ঠাট্টা মশকরা করেন! কিছু মানুষ আবার খুব ফান করে বলেন- আমি আবার একটু নারীবিদ্বেষীই খানিকটা! অনেকে বলে নারীবাদ একটা ফাউল জিনিস! হুদাই সম অধিকার বইলা লাফাইতে থাকে!! কিয়ের এত সম অধিকার লাগে?? বাসে সিট দিয়া থুইসি না????

ডিয়ার সেইসব মানুষজন, আপনারা বিছানায় বউ নিয়া না শুইয়া একটা গে পিছনে নিয়া রতিক্রিয়া করতে পারেন না?? মা এর দুধ ছোটবেলায় না খেয়ে বাপের নিপলগুলি চুষতে পারেন নাই?! যে জরায়ুমুখ দিয়ে বের হইয়া আজকে আলো বাতাস দেখতেছেন, সেই জরায়ুমুখটা বুইজা যাইতে পারল না আপনারা জন্মের সময়?? নারীবাদ নিয়া আবার মশকরা করেন যে খুব?!! “আমি নারীবাদ পছন্দ করিনা”, আর “আমি আসলে একটা মানুষের বাচ্চা না” এই দুইটা যে সমার্থক বাক্য সেইটা জানার মত ঘিলু হয়নাই কেন? শাল দুধ খেয়ে বড় হন নাই আপনেরা??? নাকি মা ক্ষতিকর মনে কইরা শাল দুধ খাওয়ায়নাই আপনাদের??? গন্ডারের ও লজ্জা শরম থাকে, আপনাদের নাই কেন জনাব??? আপনাদের নাই বলেই আজকে আমাকে এভাবে লিখা লাগতেছে!

নারীবাদ হেটার্স, আজকে আপনার মায়ের পিছন দিয়া কেউ হাত ঢুকায় দিলে কি রিকশা ডাইকা বলতেন – ভাই, যান গা তাড়াতাড়ি! নারীবাদরে চু* না! নাকি আপনার মা বইন ঘরে তালা লাগায় দিন রাত বইয়া থাকে, সূর্যের আলো দেখেনা, বাইরে যায়না, পড়াশুনা চাকরি বাকরি করেনা?? নাকি আপনার মা বইন রে আপনি মিস্টির মত ছাকনি দিয়া ঢাইকা ঢাইকা সব যায়গায় নিয়া যান??? যদি তাই নেন, তাইলে কাদের ভয়ে নেন? পুরুষতন্ত্রের ভয়ে? না নারীবাদের ভয়ে??? নিজেই যে জঘন্য পুরুষতন্ত্রের চরকা হইয়া চাক্কা ঘুরাইতেছেন, সেই চাক্কা কি মায়ের পিছন দিকে হাত দিলেই উল্টাভাবে চলা শুরু করে??আবার কন আমি নারীবাদ লাইক করিনা!??? মায়ের পেটে থাকা অবস্থায় কইতেন, তাইলে এত কষ্ট সহ্য করে কেউ আপনাদের জন্ম দিত না! মায়ের দুধ খাওয়ার সময় এই কথা কইতেন, পাউডার দুধ গুলায় গুলায় মুশকো জওয়ান মরদেরা আপনাদের পালত! সমস্যা কি আছিল???

আর কারো মা হয়না এই দেশে? বইন লাগে না? সে আমার বোন ছিল না!!?? আমি নারীবাদ চো**ইলে আপনাদের পুজ ওয়ালা ঘায়ে লাইগা যায় কেন??

আপনারা ভদ্র সমাজে রেপিস্ট না হইলেও এইসব হারামিদের সাহায্যকারী না??? আমি আমার ফেসবুকে চেনা পরিচিত এমন একশটা পুরুষ মানুষ দেখাইতে পারব যারা কিনা নারীবিদ্বেষী! যারা মনে করেন নারীবাদ ফাঊল! যারা ভাবেন সমাধিকার দরকার নাই, একটু পড়াশুনা আর চাকরি করতে পারবে, কিন্তু চরকা থাকবে আমার হাতে! চিরায়ত বংগ মাইয়া যেমন দেখছি, ললনা, অবলা টাইপ! তার নিজের সেয়িং বা মতামত থাকবে কম, সমান না!যে এইসব দেখার পর ও লুতুপুতু স্ট্যাটাস দিবে, আমার মত ভাষা ব্যবহার করে না! মাইয়ারা হবে ভদ্র! সুমধুর কিন্নরী! সামনে পিছে হাতাইলেও ভদ্র মেয়ের মত চুপচাপ চইলা যাবে! কারন এইটা এই দেশের পুরুষদের অধিকার! তেতুল দেখলে খাইতে মন চাইতেই পারে! মাইয়াদের তবুও ভদ্র থাকা লাগবে! ফেসবুকে সিনিয়র আছে, ভদ্র ভাষা ব্যবহার করা লাগবে যতই খারাপ ব্যপার ঘটুক! ভদ্রতা!

ওয়েল, আমি এখন থেকে আর ভদ্রতা চো *ইনা! আপনার ভদ্রতা আপনি আপনার গুপ্তকেশে গিট্টু দিয়া রাখতে পারেন! আজকে আমার বইনটা চুপচাপ এবিউজড হয়ে ভদ্র বেশে চলে যায়নাই বলে ভার্বালি এবিউজ হল ভদ্রতার নাম করে, অইটাও গিট মাইরা থুইতে পারেন সানন্দে! কে দেখতে যাইব আপনাদের গুপ্তকেশ? আমি? না আপনাগো মায়েরা? আজকে আপনার আপন কেউ হইলে কত ভদ্র ভাষা, কত দেশপ্রেম, কত ভালো কথা আর আশার বানী বের হইত? Fucking Answer me!!!!

আজকে আমার বোন, কালকে আরেক অচেনা বোন, পরশু আরেকজন, ডেইলি হয়, হাজারবার করে!… চেইন রিএকশন! রাষ্ট্র নিরাপত্তা আশা করিনা! মানুষের হেল্প আসা করিনা! কিন্তু সবাই এসে বাচায় দেয় এইটা কি দেশ ভাই?? এ কেমন দেশ???এ কেমন দেশ?? বুঝান আমারে?!

নারীবাদ ফলাই বলে যাদের ঘা লেগে যায়, ফাইজলামি না, অতি সত্তর আপনারা রেইনবো আন্ডারওয়ার কিনেন!কারন কয়দিন পর এই দেশে মেয়ে থাকবেনা। ভদ্র শিক্ষিত মেয়েরা থাকবেনা! তখন রেইনবো আন্ডু ছাড়া উপায় থাকবেনা!

একজন সাইকোপ্যাথ এর বিরুদ্ধে লড়া যায়!!! পুরা সাইকো সমাজের সাথে কিভাবে লড়া যায়???? কিভাবে?? কেমনে???? how?? একটা মানুষ এবিউজার হইতে পারে! এতগুলা মানুষ কিভাবে এমন হয়?? এবিউজারের পক্ষ নিয়া তাকে বাচায় দেয় সসম্মানে!? ভদ্র সমাজে এমন দেখছেন আপনি???

আমি যেদিন পারব সেদিন এই ভয়ংকর সাইকোপ্যাথ সমাজ থেকে পালাব! আমার বোনকে নিয়ে পালাব! মেধার ঘাটতি থাকলেও গতর খেটে আমি কাজ করতে পারব! আপনেরা তখন রেইনবো আন্ডারওয়ার পড়ে “নারীবাদ চুদিনা” বলে বুকে হাত দিয়ে জাতীয় সংগীত গাইতে থাইকেন, আর নিজ বোন বা বউ এর পাছা বুকে কেউ হাত দিলে, কেন সে পর্দাটা একটু বড় করল না, করলেই তো এমন হইত না বইলা বুঝ দিয়েন আর চুপচাপ চইলা আসতে বইলেন! পারলে ধর্ষকামীরে একটু চোখ টিইপা হাইসা হাই ফাইভ দিয়েন, তারে রিকশায় আদর কইরা তুলে দিয়েন। ভাড়াটাও দিয়ে দিয়েন! এই জানওয়ারল্যান্ড আমরা সানন্দে আপনাদেরকে স্বত্ব ত্যাগ করে দিয়ে যাব ইনশাল্লাহ! আপনের মত জানোয়ার, আপনাদের মা বইন আর ওইসব রেপিস্ট পটেনশিয়াল রেপিস্ট মিলে মিশে থাকবেন এই দেশে!! একদিন নিজের আপন বোন, যার সাথে দুস্টামি মারামারি কইরা বড় হইছেন, একদিন তাকে দেখবেন আর্ত চিৎকার করতে! ভালা হইবেক না???

Fariha Islam Munia

About banglamail

Check Also

জামায়াত বিরোধীতার একাল সেকাল-১

সময়কাল-১৯৯১। দির্ঘ দিনের রাজনৈতিক অস্থিরতার অবসান ঘটিয়ে ফেয়ার ইলেকশান দিলো ততকালিন অস্থাীয় রাষ্ট্রপতি। এরশাদের পতনের …