মাদরাসার পানিতে ইঁদুরের বিষ!

ভারতের সাবেক উপরাষ্ট্রপতি হামিদ আনসারির স্ত্রী সালমা আনসারি পরিচালিত একটি মাদরাসার খাবার পানির ট্যাংকে ইঁদুর বিষ মেশানোর ঘটনা ঘটেছে।উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ে মাদরাসাটির বোর্ডিংয়ের পানির ট্যাংকে রাতের অন্ধকারে বিষ মেশায় অজ্ঞাত দুই দুর্বৃত্ত।তবে একজন শিশু শিক্ষার্থী এ ঘটনা দেখলে দুর্বৃত্তরা তাকে ধাক্বা দিয়ে ফেলে পালিয়ে যায়।বোর্ডিংয়ে থেকে চার হাজার শিশু মাদরাসায় পড়াশোনা করে।সোমবার সালমা আনসারি অভিযোগ করেন, রাতে এক আবাসিক ছাত্র বোতলে পানি আনতে গেলে দুই ব্যক্তিকে ট্যাঙ্কের পানিতে কিছু মেশাতে দেখে।এ সময় ছাত্রটি তাদের চলে যেতে বললে তারা তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়।এরপর ওই ছাত্র ঘটনাটিকে বোর্ডিংয়ের তত্ত্বাবধায়ককে (ওয়ার্ডেন) ঘটনা জানায়। কর্তৃপক্ষ পুলিশকে খবর দেয়।সালমা বলেন, ট্যাঙ্কের কাছে ইঁদুর মারা বিষের ট্যাবলেট পাওয়া গেছে।

তিনি জানান, দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যাওয়ার আগে ওই ছাত্রকে ভয় দেখিয়ে বলেছে কাউকে ঘটনার কথা বললে তার কঠিন পরিস্থিতি হবে।
বিষ মেশানোর ঘটনায় অজ্ঞাত দুই দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩২৮ ধারা (‌বিষ দিয়ে কারও ক্ষতি করা)‌ এবং ৫০৬ ধারায় (‌দণ্ডনীয় ভীতি প্রদর্শন)‌ এফআইআর করেছে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ।উল্লেখ্য, গত ১১ আগস্ট ভারতের উপরাষ্ট্রপতি পদে দ্বিতীয় মেয়াদ শেষ করেন হামিদ আনসারি।এর আগের দিন রাজ্যসভা টেলিভিশনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, মুসলমানরা ভারতে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। সব ধর্ম ও সংস্কৃতির প্রতি সহিষ্ণুতারও ঘাটতি দেখা যাচ্ছে।

গরুসংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা এবং ঘরে ফেরা (ঘর ওয়াপসি) কর্মসূচির কারণে অসহনশীলতা বেড়ে যাওয়ায় মুসলমানরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে দাবি করেন আনসারি।তিনি বলেন, শতাব্দীর পর শতাব্দী বহু মতকে সম্মান করেই আমরা ভারতীয় সমাজে বাস করে আসছি, যা এখন সংকটের মুখে পড়েছে।আনসারির ওই সাক্ষাৎকার নিয়ে ভারতজুড়ে বেশ আলোচনার জন্ম হয়। তবে তার এমন বক্তব্যের সমালোচনা করেন দেশটির বর্তমান উপরাষ্ট্রপতি ভেঙ্কাইয়া নাইডু। এ ছাড়া কট্টর হিন্দুত্ববাদীরাও তার বক্তব্যের সমালোচনা করে।

Comments Us On Facebook: