জামায়াত কর্মী মানেই সমাজ কর্মী,এই শ্লোগান তুলে ধরতে হবে:ডা.হেলাল

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের আমীর (ভারপ্রাপ্ত) ও কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য এডভোকেট ড. হেলাল উদ্দিন বলেছেন, ”জামায়াত কর্মী মানেই সমাজকর্মী” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে সমাজের সকল স্তরে ইসলাম ও মানবতার সুমহান আদর্শ জামায়াত নেতা কর্মীদের তুলে ধরতে হবে।যারা মানুষের কল্যাণ কামনা করেনা মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তাদের কখনোই অনুগ্রহ প্রদান করেন না। তাই আল্লাহর অনুগ্রহ পেতে হলে সকলকে মানবতার কল্যাণে কাজ করতে হবে। সে লক্ষ ও উদ্দ্যেশ্যকে সামনে রেখেই মানুষ ও মানবতার কল্যাণে কাজ করছে জামায়াতে ইসলামী।তিনি ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের খিলগাও থানার উদ্যোগে আয়োজিত মজলিশে শুরা ও দায়িত্বশীল সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।খিলগাও থানা আমীর ও মহানগরী দক্ষিণের মজলিশে শুরা সদস্য আব্দুল্লাহ আল-আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে আরোও উপস্থিত ছিলেন খিলগাও থানা সেক্রেটারি এস. এম জুয়েল, থানা কর্মপরিষদ সদস্য আব্দুর রহমান সাজু, শেখ মোহাম্মদ, এডভোকেট বাবুল হোসাইন, মোহাম্মদ আলী ভুট্টো, ইলিয়াস মৃধা, রওশন জামিল, আশরাফুল আলম ইমন প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।ড. হেলাল আরোও বলেন, সমাজ ও রাষ্ট্র পরিচালনায় সৃষ্টিকর্তা মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন প্রদত্ত কল্যাণকর ও পরিপূর্ণ ব্যবস্থা “ইসলাম” এর পরিবর্তে মানব রচিত ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত থাকায় দেশবাসী বিভিন্ন দল ও উপদলে বিভক্ত হয়ে সংঘাত ও সংঘর্ষে লিপ্ত।

দেশের মানুষের জান-মাল ও ইজ্জতের কোন নিরাপত্তা নেই, খাদ্য দ্রব্যসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সকল দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতিতে দেশের মানুষ দিশেহারা। সুশাসন, ন্যায়বিচার ও মৌলিক আধিকার থেকে বঞ্চিত হয়ে সমাজের মানুষ আজ চরম দুর্ভোগ ও অশান্তিতে দিন কাটাচ্ছে।এ নাজুক অবস্থা থেকে বাঁচার পথ হচ্ছে “আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের প্রদত্ত কল্যাণকর জীবন ব্যবস্থা “ইসলাম” এর আইন-বিধান সমাজ ও রাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠা করা।”তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার ইসলামী চেতনাকে মুছে ফেলার পাশাপাশি ইসলামী সংগঠন ও নেতৃত্বকে নি:শেষ করে দিতে চায়।
এজন্যই বর্তমান সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতাগ্রহণের পরপরই দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও জাতিসত্তাবিরোধী অপতৎপরতা শুরু করেছে।
নেতৃত্ব ও মেধাশূন্য করে দেশকে পরাশ্রয়ী, নতজানু ও করদরাজ্য বানানোর জন্যই জনগণের জান-মালের নিরাপত্তা দেয়ার পরিবর্তে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের মাধ্যমে জনজীবনকে অতিষ্ঠ করে তুলেছে।কিন্তু জনগণ সরকারের দমন-পীড়ন ও সীমাহীন ব্যর্থতার বিরুদ্ধে যাতে কোনোভাবেই প্রতিরোধ আন্দোলন গড়ে তুলতে না পারে সে জন্যই দেশের গণতন্ত্র, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ধ্বংস করে দিয়েছে।আওয়ামী লীগের দেশ জাতি ও গনতন্ত্র বিরোধী ষড়যন্ত্রের কারনে দেশ আজ অকার্যকর রাষ্ট্রের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। দেশে গনতন্ত্র চর্চার
অধিকার, মিছিল মিটিং সমাবেশের অধিকার নেই। তিনি বলেন, অবৈধ সরকার ক্ষমতা আকড়ে ধরে রাখতেই রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস পরিচালনা করছে।সরকার জাতীয় ঐক্যমতের ভিত্তিতে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন না করে ৫ জানুয়ারীর মত প্রহসনের নির্বাচন করতে চাই অথচ একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনই কেবল চলমান সঙ্কট থেকে দেশ ও জাতিকে রক্ষা করতে পারে।তিনি দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষা ও গনতন্ত্র পূনরুদ্ধারেরর দাবীতে এই অবৈধ ও গনধিকৃত ফ্যাসিষ্ট সরকারের বিরুদ্ধে গণ-আন্দোলন গড়ে তুলতে সর্বস্তরের জনসাধারনকে উদাত্ত আহ্বান জানান।

Comments Us On Facebook: