Thursday , October 18 2018
Home / আলোচিত সংবাদ / বিএনপি কি শনিবার প্রার্থী ঘোষণা করবে?

বিএনপি কি শনিবার প্রার্থী ঘোষণা করবে?

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদে উপনির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীর নাম আগামীকাল শনিবার (১৩ জানুয়ারি) ঘোষণা দেওয়ার কথা থাকলেও তা হচ্ছে কি না, এ নিয়ে দলটিতে আলোচনা শুরু হয়েছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ১৬ জানুয়ারি বৈঠকের পর তাদের প্রার্থী ঘোষণা করার কথা জানানোয় বিএনপি আগাম প্রার্থী ঘোষণা থেকে বিরত থাকতে পারে–শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) এমন কথাই জানা গেলো দলটির কয়েকজন নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে কথা বলে।আগামীকাল শনিবার রাতে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। এ বৈঠকেই ডিএনসিসি উপনির্বাচনের প্রার্থী নিয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার কথা। তবে এখন প্রার্থী নির্ধারণের ক্ষেত্রে পরিবর্তনের একটি ইঙ্গিত মিলেছে বিএনপির কয়েকজন নেতার সঙ্গে আলাপে। অবশ্য কেউই বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারেননি।২০১৫ সালের ডিএনসিসি নির্বাচনে বিএনপিসমর্থিত প্রার্থী ছিলেন দলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাবিথ আউয়াল। আসন্ন উপনির্বাচনেও তার কথা জোরেসোরেই আলোচনা হচ্ছে দল ও গণমাধ্যমে। অনেকেই প্রায় নিশ্চিত যে, তার প্রার্থিতাই চূড়ান্ত।তবে বিএনপির নির্ভরযোগ্য সূত্র বলছে, আওয়ামী লীগ এখনও প্রার্থী ঘোষণা না করায় এবং বিদেশে টাকা পাঠানোর বিষয়ে তথ্য প্রকাশ হওয়ায় তাবিথ আউয়ালের বিকল্প প্রার্থী খুঁজছে বিএনপির হাইকমান্ড। এক্ষেত্রে কাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে, এ নিয়ে সূত্রগুলো মুখ খুলতে চাইছে না। তাদের ভাষ্য, এক্ষেত্রে তাবিথ আউয়ালের বিকল্প হিসেবে কয়েকজন প্রার্থী আছেন।বিএনপি ও ২০ দলীয় জোট নেতাদের আলোচনায় ইতোমধ্যে সাবেক মন্ত্রী মেজর (অব.) কামরুল ইসলাম, ২০ দলীয় জোটের শরিক বিজেপির চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না এবং গত মেয়র নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও তার বাবা আবদুল আউয়াল মিন্টুর নাম উঠে আসলেও আরও প্রার্থীর নাম রয়েছে দলটির হিসেবে। এক্ষেত্রে নতুন চমক থাকতে পারে ডিএনসিসি উপ-নির্বাচনে।নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির একজন ভাইস চেয়ারম্যান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘প্রার্থীর নাম যেহেতু এখনও ঘোষণা হয়নি, সেহেতু পরিবর্তনের সম্ভাবনাও শতভাগ। তাবিথ আউয়ালের নাম প্রচার হলেও প্যারাডাইস পেপারস কেলেঙ্কারিতে তার নাম আসায় নতুন করে এই অভিযোগগুলো নির্বাচনি কৌশল হিসেবে মোকাবিলা করাটা মুশকিল। আর বিএনপি দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বাইরে আর কারও মামলা বা এ সংক্রান্ত অভিযোগ নিয়ে ভাবতে বা কাজ করতে প্রস্তত নয়।’
জানতে চাইলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান অবশ্য বলেছেন, পরিবর্তনের কথা তিনি জানেন না। তিনি বলেন, ‘এমন তো শুনিনি। তাবিথের কথাই তো জানি।’ঢাকা বিভাগের একজন ভাইস চেয়ারম্যান মনে করেন, নির্বাচন করতে অর্থের একটা বড় প্রয়োজন আছে। সে বিবেচনায় তাবিথ আউয়ালই আদর্শ।বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘স্থায়ী কমিটির বৈঠকে চলমান রাজনৈতিক বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হয়। সে হিসেবে ডিএনসিসি উপনির্বাচন তো সামনে, প্রার্থীর বিষয়েও আলোচনা হতে পারে।’গত ৯ জানুয়ারি বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ১৩ জানুয়ারি ডিএনসিসি উপনির্বাচনে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী ঘোষণা করা হবে। এর আগের দিন গুলশানে ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে সিদ্ধান্ত হয় ডিএনসিসি নির্বাচনে একক প্রার্থী দেবে জোট।বিএনপির মহাসচিবের বক্তব্যের পর ধারণা করা হচ্ছিল, শনিবার রাতেই স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে ডিএনসিসি উপনির্বাচনের প্রার্থী ঠিক করবে বিএনপি। তবে নতুন প্রেক্ষাপটে এটি এখন অনেকটাই দূর বলে ভাবছেন চেয়ারপারসন কার্যালয়ের কেউ কেউ। তাবিথ আউয়ালের বিকল্প চিন্তা করলে স্থায়ী কমিটিতে এ নিয়ে বিস্তর আলোচনা এমনকি তর্ক-বিতর্কও হওয়ার আশঙ্কা আছে। তবে সবকিছু পরিষ্কার হতে পারে শনিবার রাতেই।স্থায়ী কমিটির বৈঠকে ডিএনসিসি উপনির্বাচনের বিষয়টি কতটা জায়গা পাবে, এমন বিষয়ে জানতে চাইলে দলের স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এজেন্ডা দেওয়া হয় না। মিটিংয়ে গিয়ে বোঝা যায় কী হবে। এজেন্ডা কী জানি না। ফলে, প্রার্থী কে হবেন বা পরিবর্তন হবে কিনা, তা বলতে পারবো না।’

About editor

Check Also

দুর্ঘটনার ওপর কারও হাত নেই – জাফর ইকবাল

আমি দুর্বল প্রকৃতির মানুষ। মাঝে মাঝেই আমি খবরের কাগজের কোনো কোনো খবর পড়ার সাহস পাই …