Thursday , October 18 2018
Home / আলোচিত সংবাদ / সম্পদে বিল গেটসকে পেছনে ফেললেন যিনি

সম্পদে বিল গেটসকে পেছনে ফেললেন যিনি

অনেকবছর ধরেই বিল গেটস পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ধনীর তালিকার শীর্ষে অবস্থান করছিলেন। কিন্তু এবার বিল গেটসকে পেছনে ফেলে সর্বকালের সেরা ধনী ব্যক্তি এখন জেফ বেজোস।সোমবার ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনের এই প্রধান নির্বাহীর সম্পদের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০৫ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলারে। আর এটি জানাচ্ছে আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্লুমবার্গের বিলিনিওয়র ট্রাকার। এর মধ্য দিয়ে তিনি মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসকে টপকে গেলেন।বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের খবর রাখে এমন পত্রিকা ফোর্বেসের মতে অবশ্য বেজোসের সম্পদের পরিমাণ কিছুটা কম। তারা বলছে, তার সম্পদের পরিমাণ ১০৪ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার। তবে বেজোসের এই সম্পদের সিংহভাগই এসেছে মূলত অ্যামাজনের শেয়ার থেকে।অ্যামাজনের শেয়ার ছাড়াও বেজোসের মালিকানায় রয়েছে ওয়াশিংটন পোস্ট ও মহাকাশ ভ্রমণ প্রতিষ্ঠান ব্লু অরিজিন।উল্লেখ্য, গত বছরের জুলাইয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বের শীর্ষ ধনী হিসেবে বিল গেটসকে টপকে যান বেজোস। পরে অক্টোবরেও আরেক বার ছাড়িয়ে যান মাইক্রোসফটকে।আরো পড়ুন >> বিল গেটসকে টপকানো জেফ বেজোস সম্পর্কে ১০টি মজার তথ্যপ্রতি বছরই শ্রেষ্ঠত্বের শীর্ষস্থানটা উঠানামা হয়। অবশ্য গত কয়েক বছর থেকে বিগ গেটসই সেই তালিকার শীর্ষে ছিলেন। এর মধ্যে এবারের বিল গেটসকে টপকানো জেফ বেজোস গত বছরও মাত্র একদিনের জন্য সে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট পরতে সমর্থ হয়েছিলেন। কিন্তু এবার মনে হয় বছর জুড়েই সেই মুকুটটা মাথায় পরে থাকবে জেফ বেজাস।
এবার জেনে নেওয়া যাক জেফ বেজোস সম্পর্কে ১০টি মজার তথ্য-জেফ বেজসের প্রথম চাকরি ছিল ফিটেল নামের একটি স্টার্টআপ টেলিকম প্রতিষ্ঠানে। অ্যামাজন প্রতিষ্ঠার আগে তিনি এধরনের আরও কিছু চাকরি করেছিলেন।বেজোস জানিয়েছিলেন, বিশ্বের সেরা ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনের পরিকল্পনা তিনি নিউইয়র্ক থেকে সিয়াটলে গাড়ি চালানোর সময় করেছিলেন।তিনি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন একদম পছন্দ করেন না। আর এজন্য তার প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন নিষিদ্ধ। এখানে কর্মীরা চার থেকে ছয় পৃষ্ঠার মেমো আকারে তাদের প্রপোজাল দেয়।জেফ বেজোস নিয়মিত সেরা ১০০ সিইও বা প্রধান নির্বাহী তালিকায় থাকেন।বেজোস সবসময় ‘টু পিৎজা রুল’ অনুসরণ করেন। অর্থাৎ নিয়ম অনুযায়ী, একটি টিমে কেবল মাত্র দুটি পিৎজা শেষ করার জন্য যথেষ্ট সংখ্যক মানুষকে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। তিনি বিশ্বাস করেন ছোট টিম অনেক বেশি দক্ষতার সঙ্গে কাজ করতে পারে।জেফ বেজোস বই পড়তে ভালোবাসেন এবং তিনি সবসময় তার কর্মীদের বই পড়তে উৎসাহিত করেন।জেফ বেজোস স্পেস ভ্রমণে সবচেয়ে বেশি উৎসাহী। তিনি স্পেস স্টেশনে মানুষের জন্য কলোনি তৈরির কথাও বলেন।২০১৩ সালে জেফ বেজোস ২৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট কিনে নেন। তিনি বলেন, পত্রিকার সম্পাদকীয় নির্দেশনায় তিনি যুক্ত হবেন না।২০০৩ সালে বেজোস প্রায় তার জীবন হারাতে বসেছিলেন। একটি মারাত্মক হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় তার মাথায় আঘাত পান। এবং ওই ঘটনার পর থেকে তিনি হেলিকপ্টার ব্যবহার প্রায় ছেড়েই দিয়েছেন।

About editor

Check Also

দুর্ঘটনার ওপর কারও হাত নেই – জাফর ইকবাল

আমি দুর্বল প্রকৃতির মানুষ। মাঝে মাঝেই আমি খবরের কাগজের কোনো কোনো খবর পড়ার সাহস পাই …