নির্বাচনের অযোগ্য হতে পারেন তাবিথ আউয়াল

ফাহিম ফয়সাল, নিজস্ব প্রতিবেদক: প্যারাডাইস পেপারস কেলেঙ্কারির সত্যতা পাওয়া গেলে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতা হারাতে পারেন বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। নির্বাচন কমিশনের একটি সূত্র থেকে এতথ্য জানা গেছে।

নির্বাচন কমিশনের সূত্রটি জানায়, দুর্নীতি দমন কমিশন যদি তাবিথ আউয়ালের অর্থ কেলেঙ্কারির সত্যতা খুঁজে পায় তাহলে আইন অনুযায়ী তাকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার অযোগ্য ঘোষণা করার সম্ভাবনা বেশি।

তাবিথ আউয়ালকে মনোনয়ন দিলে রংপুরের মতো ঢাকা উত্তরেও বিএনপির পরাজয় হবে বলে আশাবাদী আওয়ামী লীগ। দলটির একাধিক নেতা জানান, যেহেতু তাবিথ আউয়ালের অর্থ কেলেঙ্কারির ঘটনা প্রমাণিত তাই কোনো দুর্নীতিবাজকে ভোট দেবে না রাজধানীবাসী।

তাছাড়া দুদকে অপরাধ প্রমাণিত হলে তাকে নির্বাচন অযোগ্যও ঘোষণা করা হতে পারে। এক্ষেত্রে তাৎক্ষণিক প্রভাবশালী কোনো প্রার্থী দিতে পারবে না বিএনপি। তাছাড়া নতুন করে কেউ এলে মাঠ তৈরি করাও তার জন্য কষ্টকর হবে। যা আওয়ামী লীগের জন্য প্লাস পয়েন্ট।

এদিকে অর্থ কেলেঙ্কারির অভিযোগে তাবিথ আউয়াল নির্বাচন করতে না পারলে তার বিকল্প হিসেবে জোটের মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী জোটের প্রধান শরিক দল জামায়াতে ইসলামীর মেয়র প্রার্থী সেলিম উদ্দিন। এটাকে মোক্ষম সুযোগ ধরে কাজে লাগানোর প্রস্তুতি নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে তারা।

জামায়াতের একটি সূত্র জানায়, তাবিথ আউয়াল নির্বাচন অযোগ্য হলে জোটের বিকল্প প্রার্থী হিসেবে সবদিক থেকে এগিয়ে দলটির মনোনিত প্রার্থী ঢাকা মহানগরী উত্তর জামায়াতের আমির সেলিম উদ্দিন। তাই তাবিথ আউয়ালের বিষয়ে কি নির্দেশনা আসে সেদিকেই চেয়ে আছেন তারা।

সেলিম উদ্দিনের ঘনিষ্ঠ সহকারী শিবিরের ঢাকা মহানগরী পূর্বের এক নেতা জানান, শিক্ষা, সততা, পরিচালনার যোগ্যতা, প্রভাব ও জনপ্রিয়তায় সেলিম ভাই অন্যদের চেয়ে এগিয়ে। তাই তাবিথ আউয়ালের অর্থ কেলেঙ্কারির বিষয়ে সরকার সিদ্ধান্তে গেলে জোটের মনোনয়ন আমরাই পাবো। আর ঢাকা উত্তরে আমাদের দলীয় অবস্থান ভালো, তার সাথে যদি জোটের মনোনয়ন পাওয়া যায় তাহলে বিজয় নিশ্চিত।

এদিকে প্যারাডাইস পেপার কেলেঙ্কারির বিষয়ে টিআইবির মহাপরিচালক কাজী ইফতেখারুজ্জামান বলেন, বার বার দুর্নীতির সাথে রাজনীতিবিদদের সম্পৃক্ততার তথ্য উঠে আসছে যা উদ্বেগজনক বিষয়। আবশ্যই তদন্ত করে দোষিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। সে যেই হোক।

তাবিথ আউয়ালের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার বিষয়ে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, প্যারাডাইস পেপারসে প্রকাশিত বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের সবার ব্যাপারে পর্যালোচনা করা হচ্ছে। তদন্ত অনেকটাই এগিয়ে এসেছে। প্রমান পেলেই সাথে সাথে আমরা ব্যবস্থা নেব।

এখনো মনোনয়ন জমার সময় না আসায় তাবিথ আউয়ালের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি প্রধান নির্বাচন কমিশনার। তিনি জানান, নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সব প্রার্থীর বিষয়েই আইন অনুযায়ী যা করার তাই তারা করবেন।

Comments Us On Facebook: