প্রতিবন্ধীরা সুযোগ পেলে সমাজে নানা ক্ষেত্রে অবদান রাখতে পারে-আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিন

রফিকুল আলম, সাতক্ষীরাঃ ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়, ক্রীড়া পরিদপ্তরের বার্ষিক ক্রীড়া কর্মসূচির আওতায় বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (২৮ডিসেম্বর) সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ মাঠে জেলা ক্রীড়া অফিসের আয়োজনে ও সুইড খাতিমুন্নেসা হানিফ লস্কর বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের সহযোগিতায় বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠান উদ্যাপন কমিটির আহবায়ক আলহাজ্ব ডা. মো. আবুল কালাম বাবলা’র সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিন।
এসময় তিনি বলেন, প্রতিবন্ধীরা সুযোগ পেলে সমাজে নানা ক্ষেত্রে অবদান রাখতে পারে। এক সময় মনে করা হতো প্রতিবন্ধীরা পরিবার ও সমাজের বোঝা কিন্তু রাষ্ট্র ও সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় তারা এখন সমাজে বিশেষ অবদান রাখতে সক্ষম হচ্ছে।

প্রতিবন্ধীদের যদি নিজের সন্তান মনে না করতে পারি তাহলে তাদেরকে মূলস্রত ধারায় ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। সমাজের প্রত্যেক মানুষকে প্রতিবন্ধী শিশুদের নিজের সন্তান মনে করে তাদের প্রতি দায়িত্বশীল হতে হবে। তাহলে প্রতিবন্ধীরা আগামী দিনে এদেশের সম্পদ হিসেবে গড়ে উঠবে।

তিনি আরো বলেন, আমাদের মনে রাখতে হবে- জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এদেশকে স্বাধীন করেছিল সব মানুষের জন্য। বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কাজ করার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে পুরস্কৃত হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিবন্ধীদের শুধু লালন পালন-ই নয়, তাদেরকে চাকরি ব্যবস্থা করেছেন।’

ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ মো. আসাদুজ্জামান বাবু, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নূর হোসেন সজল, জেলা ক্রীড়া অফিসার মো. খালিদ জাহাঙ্গীর, প্রাক্তন জেলা ক্রীড়া অফিসার (খুলনা) শেখ আবু সালেক, জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের প্রবেশন অফিসার মো. মিজানুর রহমান প্রমুখ।

খেলা পরিচালনা করেন নাজমা আক্তার রুমা রানী ও রবিউল ইসলাম। সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সুইড খাতিমুন্নেসা হানিফ লস্কর বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম।

Comments Us On Facebook: