দলবাজি করি না, পায়ে পায় লাগিয়ে ঝগড়া করি না- ইনু

জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, খালেদা জিয়া বা কোন ব্যাক্তিই আইনের উর্দ্ধে নয়। আইন কানুন ও আদালতের বিধান অনুযায়ী বেগম জিয়ার মামলা পরিচালিত হচ্ছে। এর সঙ্গে কোন রাজনৈতিক সম্পর্ক নেই। তিনি আরো বলেন, আইন প্রয়োগে বাধাদানকারীদের জন্য অন্য আইন আছে। সুতরাং বেগম খালেদা জিয়া বা তার দোসররা যদি বিচার কার্যকে বাধাগ্রস্থ করে তাহলে আইন প্রয়োগের বাধাদানকারী হিসেবে তার আলাদা মামলা হতে পারে।

শুক্রবার সকাল ১০টায় কুষ্টিয়া সার্কিট হাউসে দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে ‘খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দিয়ে বিএনপিকে হয়রানি করছে মির্জা ফকরুলের এমন অভিযোগ ও রবিবার সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি’ নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। খবর বাসসের।

ইনু জনগণকে উদ্দেশ্য করে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের নেত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে দাঁড়ান। রাজাকারের বন্ধু, জঙ্গির সঙ্গী বেগম খালেদা জিয়াকে বর্জন করে বাংলাদেশকে চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র ও সাম্প্রদায়িকতার হাত থেকে রক্ষা করুন।

এ সময় জেলা জাসদের সভাপতি আলহাজ গোলাম মহসিন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপনসহ জাসদ ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে তিনি কুষ্টিয়া মিরপুর উপজেলার মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে একমতবিনিময় অনুষ্ঠানে যোগদেন।

আমরা না থাকলে রাস্তায় ফ্যা-ফ্যা করে ঘুরবেন হাজার বছরেও ক্ষমতার মুখ দেখবেন না: আ.লীগকে ইনু

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু

এর আগে ৮ নভেম্বর আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ্য করে কারো নাম উল্লেখ না করে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, আমি জাসদ করি, কিন্তু দলবাজি করি না, পায়ে পায় লাগিয়ে ঝগড়া করি না। মারামারি চাই না, আমি শান্তি চাই। তাই বলে জাসদের এটাকে দুর্বলতা ভাববেন না। জাসদের শক্তি আছে, লাঠি আছে। আমরা যদি মনে করি, জাসদের লাঠি যে রাস্তায় যাবে, সেই রাস্তায় আর কেউ থাকবে না।

৮ নভেম্বর কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা জাসদ আয়োজিত এক জনসভায় এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেশের জন্য হাসিনার সঙ্গে ঐক্য করেছি, খালেদাকে বর্জন করেছি। জাসদ ঐক্যের মর্যাদা রাখবে, আপনারা পায়ে পা লাগিয়ে ঝগড়া করবেন না।

আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনি (আ.লীগ নেতা) আশি পয়সা। আর এরশাদ, দিলীপ বড়ুয়া, মেনন আর ইনু মিললে এক টাকা হয়। আমরা যদি না থাকি, তাহলে আশি পয়সা নিয়ে রাস্তায় ফ্যা-ফ্যা করে ঘুরবেন। এক হাজার বছরেও ক্ষমতার মুখ দেখবেন না। আমি অন্য এমপিদের মতো ডিসি, এসপি আমদানি করি না। ওসি, ইউএনও আমদানি করি না। আমি মনে করি, ডিসি-এসপি, ইউএনও ওসি সাহেবরা আইন অনুযায়ী চলবেন। কারণ, আমার কর্মীরা ডাকাত না, চোর না, নারী নির্যাতনকারী না। আমার ওসির কাছে তদবির করার দরকার নাই। ওসি সাহেব, ইউএনও সাহেব, আপনারা আইন অনুযায়ী চলবেন।

মন্ত্রী বলেন, কেউ কেউ বলেন কারো দয়ায় নাকি আমি মন্ত্রী হয়েছি। আমি কারো দয়ায় মন্ত্রী হয়নি, শেখ হাসিনা আমায় বিশ্বাস করে মন্ত্রী বানিয়েছেন। আমি সেই বিশ্বাসের মর্যাদা দিয়েছি। ঐক্যের প্রশ্নে আমি একটি কথাই বলব, এক টাকা চেনেন? এক শ পয়সায় এক টাকা। আপনার আশি পয়সা থাকতে পারে, কিন্তু এক টাকার মালিক না। নিরানব্বই পয়সা থাকতে পারে, কিন্তু এক টাকার মালিক না। যতক্ষণ এক টাকা হবে না, ততক্ষণ ক্ষমতা পাবেন না।

মিরপুর উপজেলা জাসদের সভাপতি মহাম্মদ শরীফের সভাপতিত্বে সেখানে কেন্দ্রীয় জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার, জাতীয় নারী জোটের সভাপতি আফরোজা হক রিনা, জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলীম স্বপন, মিরপুর উপজেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আহম্মদ আলী প্রমুখ বক্তব্য দেন।

প্রসঙ্গত, এর আগে ১ নভেম্বর একই স্থানে মিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে দলটির সদস্য নবায়ন ও সংগ্রহ সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফের উপস্থিতিতে জাসদ ও হাসানুল হক ইনুর তীব্র সমালোচনা করে বক্তব্য দেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা। তারা জাসদকে ‘ঢাল নেই তলোয়ার নেই, নিধিরাম সরদার’ বলেও কটাক্ষ করে বক্তব্য দেন। মুলত সে প্রেক্ষিতে এর জবাব দিতে গত শনিবার জাসদের নেতা-কর্মীরা সিদ্ধান্ত নেন, পাল্টা জনসভা ও শোডাউন করবেন। তাই বুধবার দুপুরের পর থেকেই মিরপুর উপজেলা ফুটবল মাঠ প্রায় ১৫ হাজার নেতা-কর্মী ও সমর্থকে ভরে ওঠে। এ সভাতেও স্থানীয় জাসদের নেতারা আওয়ামী লীগের নেতাদের উদ্দেশে বিভিন্ন ধরনের বক্তব্য দেন।

আরটিএনএন

Comments Us On Facebook: