ডাঃ জাকির নায়েক ইয়াহুদীদের দালাল, যে কারণে তিনি ইসরাঈলে নিষিদ্ধ !

ইসরাইলেও আছে তাবলীগ জামায়াতের মার্কাজ !ডাঃ জাকির নায়েক ইয়াহুদীদের দালাল, যে কারণে তিনি ইসরাঈলে নিষিদ্ধ ! কিন্তু তাবলীগ জামায়াত দ্বীনের অত্যন্ত প্রহরী যে কারণে ইসরাঈলেও তাদের মারকাজ থাকে ! ডাঃ জাকির নায়েক মুসলিমদের গোমরাহ করে ইসলামের চরম ক্ষতি সাধন করছেন, যে কারণে ভারতের মুশরিক সরকার তার দাওয়াহ কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার জন্য গোয়েবলীসিয় প্রচারনার মাধ্যমে তাকে ভারত ছাড়া করেছে। কিন্তু তাবলীগের মেহনত মুসলিমদের ঈমান আমল হেফাজতের সাথে সাথে হিন্দুদের কাছে ইসলামকে আধুনিক পদ্দতিতে পৌছে দিচ্ছে যে, কারণে তাবলীগের মুল মার্কাজ এখনো নিজামুদ্দিনে সগৌরবে প্রতিষ্টিত হয়ে আছে।

পৃথিবীর বিভিন্ন রাষ্ট্রে ডাঃ জাকির নায়েককে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে, এর কারণ হলো, তিনি ইয়াহুদী খৃষ্টানদের গোপন মিশন বাস্তবায়নে ব্যস্ত। তিনি সুন্নাতী পোষাক আসাকে অভ্যস্ত নন। তিনি সূফীবাদের মতো সহিহ ইসলামের সমালোচনা করে ইয়াহুদী, খৃষ্টান, নাজুশীদের চক্ষসূল হয়ে তাদের বিরাগভাজন হয়ে গেছেন। যারা এগুলো করছেন না, তাদের জন্য প্রত্যেকের দরজা খোলা আছে। যেভাবে ইচ্ছে প্রবেশ করুন। সহিহ ইসলামের দাওয়াতে বাধা দেওয়া ইয়াহুদী, খৃষ্টান, মুশরেক বা নাজুশী কারোই ঠেকায় পড়েনি। ঠেকায় পড়েছে, ডাঃ জাকিরের মতো ভুল ইসলাম প্রচারকারীকে বিরত রাখাতে। কেননা ইসলাম এখন ইয়াহুদীরা বেশি বুঝে, খৃষ্টানরা বেশি রিসার্চ করে ইসলাম নিয়ে।

শুধু কি ডাক্তার জাকির নায়েক ? জ্বি না, যারাই যেখানে যতটুকো ইসলামের ক্ষতি করবেন, ততটুকো প্রতিদান ইয়াহুদী নাসারা এবং মুশরেকদের থেকে ফেরত পাবেন।আপনি ইসলামের ক্ষতি করে যাবেন, আর ওদের রাডারে ধরা পড়বে না, এটা তো হতে পারে না। আপনি কি জানেন, ইসলাম নিযে গবেষনার ক্ষেত্রে মুসলিমদের থেকে ইয়াহুদীরা অগ্রগামি ? কোরআন গবষেনায় নাসা থেকে বেশি বিনিয়োগ কোন প্রতিষ্টান করেনি।

রাসুলুল্লাহ (স), তার সাহাবায়ে কেরাম (রা) সহ সালফে সালেহীন সহ সকল মর্দে মুজাহিদরা কি করে দুনিয়াতে প্রতাপ প্রতিপত্তি সৃষ্টি করেছেন, তাদের দাওয়াতের লক্ষ উদ্দেশ্য, ভাষা পরিভাষা কি ছিলো সে বিষয়ে ওদের গবেষনা কার্যক্রম হচ্ছে অত্যাধুনিক। তাহলে বুঝতেই তো পারছেন, বিশুদ্ধ ইসলাম ওদের চাইতে কেউই বেশি বুঝে না, বেশি চিনে না। তাহলে জাকির নায়েকর কি করে তাদের হাত থেকে বাচবেঁ। ইসলামকে হেফাজত করাই তো ইয়াহুদী খৃষ্টান সহ সকল কুফ্ফারদের আসল মিশন !

বাংলাদেশেও তো একই অবস্থা ! জামায়াত, হেফাজত, চরমোনাই, মজলিস সহ প্রত্যেক সংগঠণ যেখানে ইসলামকে যতটুকো ছেড়ে দিচ্ছে, সেখানেই ইয়াহুদী খৃষ্টানরদের ততটুকো বিরাগভাজন হচ্ছে। আপনি যতটুকো ইসলাম মানবেন, ওরা ততটুকো প্রতিদান কড়ায় গন্ডায় ফেরত দিতে দায়বদ্ধ। যে যতটুকো ইসলাম মানতে পারছে, ওরা তাদের ততটুকো উৎসাহ দিচ্ছে। যে কারণে বাংলাদেশে ডাঃ জাকির নায়েকের আগমন নিষিদ্ধ, কিন্তু পোপ বাবাজির সর্বধর্মীয় প্রার্থনা বহুত ফায়দামান্দ ! আসুন, ইয়াহুদী খৃষ্টানদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিপেক্ষিতে আমরা নিজেদের মধ্যকার ইসলাম সম্পর্কে ধারণা নেই। নিজের ভিতরে ইসলাম কতটুকো আছে, সেটা ওদের আয়নায় যাচাই করে নেই।

Apu Ahmed

Comments Us On Facebook: