পিতা-মাতার জন্য সব চেয়ে উত্তম দুআ

পিতা-মাতার জন্য সব চেয়ে উত্তম দুআ, দুআ করার সঠিক পদ্ধতি এবং এ ক্ষেত্রে বিদআতী কার্যক্রম

প্রশ্ন: পিতামাতার নেক হায়াত এবং দুনিয়া ও আখিরাতের কল্যাণের জন্য কিভাবে দোয়া করতে হয়? দুআ করার জন্য আলেম, হাফেযদেরকে দাওয়াত দিয়ে খাওয়ানো এবং তাদেরকে টাকা দেয়া যাবে কি?

উত্তর:দুআর বিষয়টি উন্মুক্ত। অর্থাৎ আমরা দুনিয়া ও আখিরাতের কল্যাণ প্রার্থনা করে নিজেদের মনমত যতখুশি যার জন্য খুশি দুআ করতে পারি।
জীবিত ব্যক্তিগণ মৃত ব্যক্তির জন্য বেশি বেশি দুয়া করবে। কারণ, মানুষ মারা যাওয়ার পর তার জন্য সব চেয়ে বেশি প্রয়োজন দুয়া। মৃত ব্যক্তিদের জন্য দুআর ব্যাপারে আল্লাহ তাআলা বলেন:
وَالَّذِينَ جَاءُوا مِنْ بَعْدِهِمْ يَقُولُونَ رَبَّنَا اغْفِرْ لَنَا وَلِإِخْوَانِنَا الَّذِينَ سَبَقُونَا بِالْإِيمَانِ وَلَا تَجْعَلْ فِي قُلُوبِنَا غِلًّا لِلَّذِينَ آَمَنُوا رَبَّنَا إِنَّكَ رَءُوفٌ رَحِيمٌ
“যারা তাদের পরে এসেছে তারা বলে,হে আমাদের প্রতিপালক,আমাদেরকে এবং আমাদের পূর্বে যারা ঈমানের সাথে (দুনিয়া থেকে) চলে গেছে তাদেরকে ক্ষমা করুন এবং মুমিনদের ব্যাপারে আমাদের অন্তরে হিংসা-বিদ্বেষ রাখিও না। হে আমাদের প্রতিপালক! আপনি তো অতি মেহেরবান এবং দয়ালু।”[সূরা হাশর: ১০]
❖ সন্তানের দুআর প্রতিদান মৃত বাবা-মা কবরে থেকে লাভ করতে থাকে:
বাবা-মা দুনিয়াবি সম্পর্কের দিকে দিয়ে সবচেয়ে কাছের। তাই সন্তানদের উচিৎ, তাদের জন্য অধিক পরিমাণে দুআ করা। সৎ সন্তানদের দুআ পিতা-মাতা কবরে থেকেও লাভ করবে বলে হাদীসে বর্ণিত হয়েছে।
আবু হুরাইরা রা. হতে বর্ণিত,রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ
إِذَا مَاتَ الْإِنْسَانُ انْقَطَعَ عَنْهُ عَمَلُهُ إِلَّا مِنْ ثَلَاثَةٍ إِلَّا مِنْ صَدَقَةٍ جَارِيَةٍ أَوْ عِلْمٍ يُنْتَفَعُ بِهِ أَوْ وَلَدٍ صَالِحٍ يَدْعُو لَهُ
“মানুষ মৃত্যু বরণ করলে তার আমলের সমস্ত পথ বন্ধ হয়ে যায় তিনটি ব্যতীত: যদি সে সাদকায়ে জারিয়া রেখে যায়,এমন শিক্ষার ব্যবস্থা করে যায় যার দ্বারা মানুষ উপকৃত হবে এবং এমন নেককার সন্তান রেখে যায় যে তার জন্য দুয়া করবে।” [বুখারী,অধ্যায়: মৃতের পক্ষ থেকে হজ্জ এবং মানত পালন করা এবং পুরুষ মহিলার পক্ষ থেকে হজ্জ করতে পারে ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৬৩১।)]
তাই আমরা বাবা-মা জীবিত অবস্থায় তাদের সুস্বাস্থ, ঈমানী মজবুতি, আমলে সালেহ, গুনাহ মোচন, শয়তানের কুমন্ত্রণা থেকে হেফাজত এবং সার্বিক কল্যাণময় জীবনের জন্য দুআ করব।
আর তারা মারা গেলেও তাদের জন্য রহমত, মাগফিরাত, কবরের প্রশস্ততা, কবরকে আলোকময় করা, তাদের হিসাব-নিকাশ সহজ করা, জাহান্নাম থেকে মুক্তি এবং জান্নাতে প্রবেশের জন্য যত বেশি সম্ভব দুআ করব।
❖ বাবা-মার জন্য কুরআনের দুআ:
কুরআনে বর্ণিত দুআগুলো সবচেয়ে উত্তম-এতে কোন সন্দেহ নাই। তাই আমরা কুরআনের নিম্নোক্ত দুয়াগুলো বেশি বেশি করার চেষ্টা করব। আল্লাহ বলেন:
১) رَبَّنَا اغْفِرْ لِي وَلِوَالِدَيَّ وَلِلْمُؤْمِنِينَ يَوْمَ يَقُومُ الْحِسَابُ
“হে আমাদের পালনকর্তা, আমাকে, আমার পিতা-মাতাকে এবং সব মুমিনকে ক্ষমা করুন, যেদিন হিসাব কায়েম হবে।“ (সূরা ইবরাহীম: ৪১)
২) رَّبِّ ارْحَمْهُمَا كَمَا رَبَّيَانِي صَغِيرًا
“হে পালনকর্তা, তাদের উভয়ের প্রতি রহম কর, যেমন তারা আমাকে শৈশবকালে লালন-পালন করেছেন।” (সূরা ইসরা: ২৪)
❖ পিতামাতার জন্য দুআ এবং আমাদের সমাজের বিদআতি প্রচলন:
আমাদের সমাজের অত্যন্ত বহুল প্রচলন হল, সন্তানরা পিতামাতার জন্য তেমন দুআ করে না! বরং তারা হাফেয ও মাওলানাদেরকে দাওয়াত দিয়ে টাকা-পয়সার বিনিময়ে দুআ করিয়ে নেয়। এটাকে ভাড়ায় দুআ করানো বলা যায়।
আর এই সুযোগে পেটপুজারি অর্থলোভী একশ্রেণীর মানুষ মিলাদ, চল্লিশা, কুরআনখানী, শবিনা খতম ইত্যাদি অসংখ্য বিদআতি কার্যক্রমের মাধ্যমে কলাকৌশলে কিছু অর্থ-কড়ি কামিয়ে নেয়। অথচ ইসলামে এই সব জঘন্যতম বিদআত।
অথচ এ সকল বিদআতের আয়োজন করা, এগুলোতে অংশ গ্রহণ করা, বিদআতিদেরকে ভাড়া করে পয়সা দেয়া.. সবই ইসলামের দৃষ্টিতে গুনাহ ও নিষিদ্ধ কাজ।
❖ আমাদের কতর্ব্য:
সুতরাং আমাদের কর্তব্য, ভাড়া করা আলেম-হাফেযদের দ্বারা দুআ না করে নিজেরা নিজেদের পিতা-মাতার জন্য পরম আন্তরিকতা সহকারে কান্নাকাটি করে দুআ করব। এতে তারা কবরে থেকেও সওয়াব অর্জন করবেন বলে হাদীসে বর্ণিত হয়েছে।
আল্লাহ তাওফিক দান করুন।
▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬▬
উত্তর প্রদানে: আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
(লিসান্স, মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সউদী আরব)
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব।

Comments Us On Facebook: