বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ৬টি হিন্দু পরিবারের সম্পত্তি দখল চেষ্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

মোড়েলগঞ্জ প্রতিনিধি : ‘২০০১ সালে নির্যাতিত হয়েছি। বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াতে হয়েছে। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে অনেক কিছু হারিয়েছে। এখন আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেও আমরা নির্যাতিত কেন ? আমাদের অপরাধ কি ?’ বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে ৬টি সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্যরা গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় মোড়েলগঞ্জ প্রেসকাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এসব প্রশ্ন উত্থাপন করেন।

মোড়েলগঞ্জের খাউলিয়া ইউনিয়ন আ. লীগের সমাজ কল্যান বিষয়ক সম্পাদক দুলাল চন্দ্র সিকদার ওই পরিবারগুলোর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। এসময় সন্ন্যাসী গ্রামের লিটন সিকদার(৩৫), রাজারাম ভদ্র(৫০), সাবেক প্রধান শিক্ষক ফনিন্দ্রনাথ সিকদার(৭৮), মাদ্রাসা শিক্ষক বিমল চন্দ্র সিকদার(৫২) ও ব্যবসায়ী সমীর সিকদার উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়, মাষ্টার আলী আকবরের ছেলে ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হাসান ৬টি সংখ্যালঘু পরিবারের জমি, বসতবাড়ি ও কয়েকটি দোকান ঘর জোরপূর্বক ভোগ দখলের চেষ্টা করছে। ইতোপূর্বে একটি মন্দির ভেঙ্গে ফেলে জমি দখল করে নিয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় সন্ন্যাসী বাজারে দুটি দোকান ঘর দখলের চেষ্টা করছে। এতে বাধা দিলে দুলাল সিকদার, তার ছেলে লিটন ও রাজারাম ভদ্রকে মারপিট করে জিয়াউল ও তার লোকজন।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান ও আ. লীগ সভাপতি মাষ্টার আবুল খায়ের বলেন, ‘হিন্দুদের দোকান দখল নিয়ে জিয়াউল গত মঙ্গলবার কয়েকজনকে মারপিট করে। ওই সময় প্রতিবাদ করলে আমাকেও লাঞ্চিত করে জিয়াউল ও তার লোকজন’।

এদিকে এই ঘটনা সম্পর্কে যুবলীগ নেতা জিয়াউল হাসান বলেন, ‘আমি মৃত শৈলেন্দ্রনাথ কাপালির জমিজমা দেখাশুন করি এবং সবকিছুর ডিফেন্স দেই। স্থানীয় আ. লীগের একটি অংশ এতে ঈর্ষান্বিত হয়ে আমার বিরুদ্ধে নানা কথা বলছে’

Comments Us On Facebook: