“কুমিল্লার লাকসামে ছাঁদ থেকে ফেলে দিয়ে পুত্রবধুকে হত্যার চেষ্টা”

মাহাদী হাসান রির্পোটার বাংলামেইল৭১…
.
গতকাল কুমিল্লা জেলার, লাকসাম থানার, বেলগর ইউনিয়নের চৌদ্দধনা গ্রামের প্রবাসী স্বামী মুহাম্মাদ অারিফ হায়দারের স্ত্রী মিসেস নিশাত অাক্তার(২০) কে তার শাশুড়ি মিসেস হাসি বেগম হত্যার উদ্দেশ্য ছাঁদ থেকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেন……

খবরে জানা যায়, গতকাল সন্ধ্যায় নিশাতের শাশুড়ি তাকে ডেকে বাড়ির ছাঁদে নিয়ে যান! ছাঁদে নিয়ে কৌশাল তাকে ধাক্কা দিয়ে নিচে ফেলে দেন ফেলে দেওয়ার পর হঠাৎ উচ্চ শব্দ হওয়ার পর প্রতিবেশীরা টের পেয়ে ঘটনা স্থানে এসে দেখেন নিশাত অজ্ঞান হয়ে পড়ে অাছে অার তার পাষান্ডো শাশুড়ি হাসি বেগম ঘরের ভিতরে দরজা দিয়ে বসে অাছেন……

বিস্তারিত খবরে জানা যায় চৌদ্দগ্রাম উপজেলার চিওড়া ইউনিয়নের ছোট সাতবাড়িয়া গ্রামের গোলাম কিবরিয়ার বড় মেয়ে মোসাঃ নিশাত অাক্তার খবরে জানা যায় তিন বছর অাগে নিশাতের ইচ্ছে বিরুদ্ধে জোর করে নিশাতকে বিয়ে করেছিলেন অারিফ হায়দার বিয়ের পর থেকে তাদের সংসারে প্রতিনিয়ত একধরনে অরাজতা লেগে থাকতো খবর নিয়ে জানা যায় নিশাতকে অারিফ জোর করে বিয়ে করছিল কিন্তু নিশাত অারিফকে কখনো পচ্ছন্দ করতো না এমনকি অারিফের মা মিসেস হাসি বেগম (৪২) এ বিয়ে সন্মতি ছিল না যে কারনে বিয়ের পরেও নিশাতের শাশুড়ি তাদের এই বিয়েকে মেনে নিতে পারেননি এমনি কি এই ৩ বছরের ও তিনি নিশাত কে তার পুত্রবধু হিসাবে গ্রহন করেনি।

নিশাতের এক ঘনিষ্ঠ সুত্রে জানা যায়, নিশাতের শাশুড়ি হাসি বেগম ও তার ননদ গুলশান আরা বেগম (২৩) নিশাতকে প্রতিদিন বিভিন্নভাবে মানুষিক নির্যাতন করতো তার ননদ তাকে কখনো ভাল চোঁখে দেখতো না কারনে অকারনে তার সাথে ঝগড়া করতো এমনকি মাঝে মাঝে গাঁয়ে হাত উঠাতো বিষয়টা অারিফ কে জানানোর পরেও অারিফ কোন প্রতিকার করেনি তিনি অারো বলেন নিশাতের স্বামী অারিফ হায়দার সবকিছুই জানতো অারিফ প্রবাসে চলে যাওয়া পরে তাদের পারিবারিক কলাহ বেড়ে যেতে থাকে এক পর্যায়ে হিংস্র হয়ে ওঠতে থাকে নিশাতের শাশুড়ি এক পর্যায়ে গতকাল নিশাতের শাশুড়ি তাকে ডেকে নিয়ে বাড়ির ছাদ থেকে ফেলে দেন।

পরে প্রতিবেশীরা টের পেয়ে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করায় ডাক্তারের রির্পোট অনুযায়ি নিশাতে ১ টি পা ও একটি হাত ভেঙে গেছে।

নিশাতের পিতার সাথে কথা বলে জানা যায় তিনি থানায় মামলা করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

Comments Us On Facebook: